পৃথিবীর ধনী ব্যক্তিরা করোনভাইরাস থেকে প্রতিরোধী নয়। গত গ্রীষ্মে বিবাহবিচ্ছেদের বন্দোবস্তের অংশ হিসাবে তার প্রাক্তন স্ত্রী ম্যাকেনজি বেজোসকে ৩৬ বিলিয়ন ডলার দেওয়া সত্ত্বেও জেফ বেজোস পরপর তৃতীয় বার বিশ্বের ধনী ব্যক্তি। ২০১৯ সালের তালিকার পর থেকে অ্যামাজনের শেয়ারের ১৫% বৃদ্ধি পেয়ে তার মূল্য ১১৩ বিলিয়ন ডলারে দাঁড়িয়েছে।

আরো পড়ুন

Error: No articles to display

বর্তমানে তার মোট অর্থের পরিমাণ ১১ হাজার ৩শ’ কোটি ডলার। ফোর্বস ম্যাগাজিনে উঠে এসেছে এ তথ্য। ফোর্বসের তালিকায় মোট বিলিওনিয়ারের সংখ্যা ২ হাজার ৯৫ জন।

২০১৯ সালে এ সংখ্যা ছিলো ২ হাজার ১শ’ ৫৩ জন। তার ঠিক পরের অবস্থানে আছেন মাইক্রোসফট প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস, যার মোট অর্থের পরিমাণ ৯ হাজার ৮শ’ কোটি ডলার।

তৃতীয় অবস্থানে আছেন ওয়ারেন বাফেট। করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে কাজ করছে অ্যামাজান। প্রতিষ্ঠানটির সব সার্ভিসই চালু আছে। করোনা সংকট মোকাবেলায় ১ লাখ অতিরিক্ত কর্মচারী নিয়োগ দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। ঘণ্টায় ২ ডলার করে মজুরি বাড়ানো হয়েছে।

সামগ্রিকভাবে, গত বছরের তালিকার তালিকাভুক্ত ২৬৭ জন যাদের ব্যবসা বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে; সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য ড্রপ-অফগুলির মধ্যে হ’ল ওয়েওয়ার্কের অ্যাডাম নিউম্যান। আরও ২১ জন ছিলেন যারা প্রয়াত হয়েছেন। তবুও, জুম ভিডিও কমিউনিকেশন্সের প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও এরিক ইউয়ান সহ আরো এর মতো কয়েক জন সহ ২০ টি দেশ থেকে আগত ১৭৮ জন নবাগত আগতদের ফোর্বস খুঁজে পেয়েছিল। যুক্তরাষ্ট্র সবচেয়ে বিলিয়নেয়ারের দেশ হিসাবে রয়ে গেছে যেখানে রয়েছে ৬১৪ জন, এবং তারপর রয়েছে বৃহত্তর চীন (হংকং এবং ম্যাকাও সহ) যেখানে রয়েছে ৪৫৬ জন।

আরো পড়ুন

Error: No articles to display