করোনা ভাইরাসের কারণে বর্তমানে গোটা বিশ্ব বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। আর এই করোনা ভাইরাসে বর্তমানে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে লাখ লাখ মানুষ সংক্রমিত হয়েছে। ইতিমধ্যে বিশ্বের প্রায় ২১৩টি দেশে এই করোনা ভাইরাস হানা দিয়েছে। আর এই করোনা ভাইরাসের কারণে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মানুষ একরকম দিশেহারা হয়েছে পড়েছে। বিশ্বের সকল মানুষের কাছে বর্তমানে একটাই প্রশ্ন আর তা হল কবে এই করোনা ভাইরাসের কার্যকারি ভ্যাকসিন আসবে। আর বর্তমানে এই করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন তৈরি করতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বিজ্ঞানীদের এরকম ঘুম হারাম হয়ে গেছে। তবে এবার এই করোনা ভ্যাকসিনের বিষয়ে সুখবর দিয়েছে যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা।

আরো পড়ুন

Error: No articles to display



এখন পর্যন্ত (বুধবার সকাল সাড়ে ১০টা) বিশ্বব্যাপী ভাইরাসটিতে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৭৩ লাখ ২৩ হাজার ৭৬১ জন। এর মধ্যে মৃ’’ত্যু হয়েছে ৪ লাখ ১৩ হাজার ৭৩১ জনের।

এখন পর্যন্ত প্রাণঘাতী এই ভাইরাসের কোনও প্রতিষেধক আবিষ্কার না হওয়ায় বিশ্বব্যাপী প্রতি মুহূর্তে বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃ’’ত্যুর সংখ্যা।

তবে আশার কথা হল, করোনার একটি ভ্যাকসিন আগামী আগস্টেই বাজারে আসতে যাচ্ছে। ভ্যাকসিনটি তৈরি করেছে যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা।
সম্প্রতি অক্সফোর্ডের সেন্টার ফর পারসোনালাইজড মেডিসিনের প্রফেসর অ্যাড্রিয়ান হিল এ তথ্য জানিয়েছেন। খবর আইরিশ মিররের।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ভ্যাকসিনটি ব্যবহার করা যাবে ইনহেলারের মাধ্যমে।

করোনা প্রতিরোধী বিভিন্ন দেশে টিকা ও ওষুধ আবিষ্কারের প্রচেষ্টা চলছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, করোনা প্রতিরোধে এ টিকা উদ্ভাবনে ১২ থেকে ১৮ মাস সময় লাগতে পারে।

তবে এর মধ্যেই কয়েকটি টিকা পরীক্ষামূলকভাবে মানবদেহে প্রয়োগ করা হয়েছে। তবে টিকা আবিষ্কারে সবচেয়ে এগিয়ে রয়েছে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা।

হিল জানান, তাদের তৈরি এই ভ্যাকসিন করোনা নির্মূলে সক্ষম হবে বলে ৮০ শতাংশ আত্মবিশ্বাসী গবেষকরা।

ভ্যাকসিন তৈরির নেতৃত্ব দেওয়া এ আইরিশ বিজ্ঞানী বলেন, আগস্টের দিকেই বাজারে আসতে পারে এই ভ্যাকসিন।

গত এপ্রিলে শিশু ও ৫৫ বছর বয়সোর্ধ্বসহ ১০ হাজার ২৬০ জনের ওপর অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় পর্যায়ের ট্রায়াল শুরু হয়েছে।

ব্রিটিশ ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি অ্যাস্ট্রাজেনেকা সম্প্রতি ঘোষণা দেয়, অক্সফোর্ডের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে তৈরি তাদের সেই ভ্যাকসিন কার্যকর প্রমাণিত হলেই ২০০ কোটি ডোজ তৈরি করা হবে। এরপরই ব্যাপক আলোচনায় আসে এটি। প্রথমে ভ্যাকসিনটির নাম ছিল ChAdOx1 nCoV-19। বর্তমানে এর নতুন ভার্সনের নাম হয়েছে AZD1222।
সূত্র:বিডি প্রতিদিন


এদিকে, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এখনো করোনা ভাইরাসে সংক্রমণ বেড়েই চলেছে। এছাড়া এখনো অনেক দেশে দিন দিন করোনা ভাইরাসে সংক্রমিত হয়ে অনেক মানুষের প্রাণ যাওয়ার সংখ্যা বাড়ছে। অনেক পরিবার হারাচ্ছে তাদের আপনজনকে। আর এ কারণে চিকিৎসকের পাশাপাশি সাধারণ মানুষও করোনা ভাইরাসের কার্যকারি ভ্যাকসিন এর অপেক্ষায় রয়েছে। আর এবার যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা এই করোনার ভ্যাকসিন নিয়ে সুখবর দিয়েছে।

আরো পড়ুন

Error: No articles to display