এই আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতাও শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান : আলাল

আসন্ন জাতিয় নির্বাচনকে সামনে রেখে তত্ত্বাবধায়ক সরকারসহ নানা ইস্যুতে আন্দোলন করছে বিএনপি। দেশের ভোট ব্যবস্থা ধ্বং/স করে জনগণের ভোটাধিকার হরণ করেছে ক্ষমতাসীন সরকার দাবি বিএনপি। আর এই গণতান্ত্রিক অধিকার জনগণকে ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য লড়াই করছে দলটি। কিন্তু সরকার আন্দোলনের ভয়ে বিএনপির নেতাকর্মীদের দ/মন করছে পুলিশ দিয়ে। সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন প্রসঙ্গে নিয়ে যা বললেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল।

বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেছেন, ওবায়দুল কাদের অনেক বড় কথা বলেছেন। আরে, আপনার দলের লোকেরা আপনার কথা শোনে না। মাঝে মাঝে মঞ্চ থেকে যান। আপনার নিজের ভাই বলেছেন, ‘ওবায়দুল কাদেরকে এই মাটিতে পা রাখতে দেব না’। আর মাতব্বরি ক/রতে আসবেন না। আ/পনাদের দিন শেষ।

বুধবার (২৫ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় নারায়ণগঞ্জ শহরের চাষাঢ়া কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ১০ দফা দাবিতে নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশে তিনি এ কথা বলেন।

সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেন, অতি উৎসাহী হয়ে কেউ আওয়ামী লীগ বা আওয়ামী ডিবি লীগ হ/বেন না। দেশের পরিচয়ে নি/জেদের পরিচিত করুন। অনেকে বলছেন আজ গণতন্ত্র হ/ত্যার দিবস। আমি বলি এটা রাজতন্ত্র কা/য়েম দিবস। বাকশালের সব ক্ষমতা এক ব্যক্তির হাতে ন্যস্ত করা হয়েছিল। এই আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতাও শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান। তার অনুমতিতেই মৃ/ত আওয়ামী লীগ পুনরুজ্জীবিত হতে পেরেছিল। সে হিসেবে সে সম্মান পেতে পারে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জিয়াউর রহমানকে সম্মান করেন না, তার অনুসারীরাও তাকে অসম্মান করে।

তিনি বলেন, রাষ্ট্রপতি পদের জন্য অনেকের নাম শুনছি এর মধ্যে একটি নাম উঠে এসেছে। বাকশালের পক্ষে যে বিচারক ঘাড়ে ব/ন্দুক রেখে তত্ত্বাবধায়ক সরকার আইন বাতিল করেছেন তিনিই রাষ্ট্রপতি হবেন। আমরা এটা মানি না।

রাষ্ট্র একটি চিরন্তন বিষয় বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব। আপনারা আজ সেই রাষ্ট্র ও সরকারকে গুলিয়ে ফেলেছেন। তুমি খেলার কথা বলেন। আমরা যখন মাঠে খেলি তখন দেখি খেলোয়াড় পুলিশ ডিবি। অনেক গেম খেলতে চান। এখন আপনার ছ/ক্কায় পোক্কা হয়ে গে/ছেন। লুডু গেমের একটি বৈশিষ্ট্য রয়েছে। ছক্কা উঠলে আবার মারতে হবে। আওয়ামী লী/গ তিন ছক্কা মে/রে করেছে। তিন ছক্কায় পো/ক্কা হয়ে গেছেন তা/রা।

তিনি বলেন, আমাদের সব নেতাকর্মী যখন জেলে ছিল, তখন পুলিশ বাহিনী নিয়ে আপনাকে (ওবায়দুল কাদের) মাঠে নামতে হয়েছে। আপনারা এটা থেকে বের হতে পারবেন না। আমরা বলেছি ইভিএম মানি না। আজ তারাও তা মা/নতে বাধ্য হয়েছে।

প্রসঙ্গত, সরকার আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ছাড়া মাঠে নামতে ভয় মন্তব্য করেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল। তিনি বলেন, তারা জনগণের সমর্থন হারিয়েছে যার কারণে পুলিশের ওপর ভর করে চলচ্ছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *