এবার বিএনপির আমলের নিখোঁজদের নিয়ে ভিন্ন তথ্য দিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

আওয়ামীলীগ সরকার জোর করে ক্ষমতায় টিকে থাকতে বিরোধী মতকে দমন করতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ব্যবহার করেছে। তার ধারাবাহিকতায় বিএনপির অনেক নেতাকর্মীদের গু/ম, বিচারবর্হিভূত হ/ত্যাকাণ্ড চালিয়েছে দাবি করে আসছে দলটি। বিএনপির পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে সরকার বিরোধী দলকে শেষ করতে এমন কর্মকাণ্ড চালিয়েছে। বিএনপি ক্ষমতা থাকাকালীন সময়ে যে নিখোঁজ হয়েছে তাদের তালিকার করা হচ্ছে মন্তব্য করে যা বললেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেছেন, বিএনপি আমলে নিখোঁজ বা গু/ম ও হ/ত্যার স্বীকার ব্যক্তিদের তালিকা তৈরি করা হচ্ছে। সোমবার সচিবালয়ে বড়দিন উদযাপন ও থা/র্টিফার্স্ট নাইট সংক্রান্ত আইন-শৃঙ্খলা সংক্রান্ত সভা শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এ কথা বলেন।

‘রাষ্ট্র কাঠামো মেরামত রূপরেখা’ ঘোষণায় বিএনপি বলেছে, গত দেড় দশকে যত গু/ম, খু/ন, নি/র্যাতন হয়েছে তার বিচার করবে তারা। এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমরাও পদক্ষেপ নিচ্ছি।

বিএনপির শাসনামলে হাজার হাজার মানুষ গু/ম হয়েছে, বিনা বিচারে হ/ত্যা করা হয়েছে, তারও একটা তালিকা করছি। এটা একটা গ/ণদাবিতে পরিণত হয়েছে। তিনি বলেন, “সে সময় মুক্তিযোদ্ধাদের হ/ত্যা করা হয়েছে। ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের হ/ত্যা ও গু/ম করা হয়েছে। আমরা তাদের নিয়ে একটি প্রতিবেদন তৈরি করছি। আমরাও চাই সবকিছুর তদন্ত হোক, একটি ব্যবস্থা থাকা উচিত। সবকিছুতে. ‘

বড়দিন, থার্টি ফার্স্ট নাইট

সারাদেশে মা/দকের অপব্যবহার রোধে ৩১ ডিসেম্বর সন্ধ্যা ৬টা থেকে ১ জানুয়ারি সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টা বার বন্ধ থাকবে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি আরও বলেন, মা/দক প্রতিরোধে ২৮ ডিসেম্বর থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত বিশেষ অভিযান পরিচালনা করা হবে। মন্ত্রী বলেন, কোনো না/শকতা ঠেকাতে সারাদেশে গোয়েন্দা তৎপরতা বাড়ানো হবে। ২৫ ডিসেম্বর বড়দিন উদযাপনের সময় এবং ৩১ ডিসেম্বর সন্ধ্যা থেকে গির্জায় ঢাকা শহরসহ দেশের সব এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক রাখার ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

রাজপথে কনসার্ট হবে না: আসাদুজ্জামান খান বলেন, “৩১ তারিখ রাতে পটকা, ভুভুজেলা, আ/তশবাজি না ফোটাতে অনুরোধ করছি। এগুলো ফুটিয়ে জনজীবনে আতঙ্ক সৃষ্টি না করতে বলা হয়েছে। কোনো কনসার্ট বা নাচ-গানের আয়োজন করা যাবে না ৩১ তারিখ রাতে ফ্লাইওভার ও রাস্তায়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে যাতে বহিরাগত কেউ প্রবেশ করতে না পারে সে ব্যবস্থা নেবে ঢাবি কর্তৃপক্ষ। প্রবেশ সীমাবদ্ধ থাকবে।’

মাঠে কনসার্ট করা যাবে কি না- এমন প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘মেট্রোপলিটন পুলিশের অনুমতি নিয়ে কনসার্ট করা যাবে। কোনো রাস্তায় যানজট করা যাবে না। কেউ যেন অবৈধভাবে মাদ/ক ব্যবসা করতে না পারে সে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ‘

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এবার ঢাকার তেজগাঁও ও রমনাসহ সারাদেশে ৫ হাজার ৬৮২টি গির্জায় বড়দিন উদযাপন ক/রা হতে পারে। সব চার্চের নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হবে। বড় চার্চে আমাদের নিরাপত্তা বাহিনীর পাশাপাশি খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের স্বেচ্ছাসেবকদের ব্যবস্থা করতে বলা হয়েছে।

বিশেষ নিরাপত্তা: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, কূটনীতিকদের অধিকাংশই খ্রিস্টান। বড়দিন ও থার্টিফার্স্ট নাইট উপলক্ষে বিশেষ নিরাপত্তা ও গোয়েন্দা বাহিনী মোতায়েন করা হবে। গির্জাগুলোতে সিসিটিভি বসানো হবে। গুরুত্বপূর্ণ গির্জাগুলিকে সু/ইপিং দেওয়া হবে, যেমনটি ভিআইপিদের চলাচলের সময় করা হয়। ডগ স্কোয়াডও থাকবে। ২৪ ডিসেম্বর থেকে ২৬ ডিসেম্বর সকাল পর্যন্ত গির্জার আশেপাশের এলাকায় সাদা পোশাকের গোয়েন্দাদের পাশাপাশি সাদা পোশাকের পুলিশ থাকবে। মন্ত্রী বলেন, প্রতিটি শহরে র‌্যাবের টহল থাকবে। খ্রিস্টান অধ্যুষিত এলাকায় র‌্যাবের টহল জোরদার করা হবে। এ ছাড়া যেকোনো ঘটনা ঘটলে ৯৯৯ নম্বরে কল করা যাবে। অবিলম্বে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশনা রয়েছে।

হু/মকি নেই: এসব উৎসব উপলক্ষে কোনো হু/মকি আছে কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘এমন কিছু নেই। আমরা মনে করি, সেখানে জ/ঙ্গিবাদ উত্থানের চেষ্টা হয়েছে; তবে আমরা ইতিমধ্যে তা চিহ্নিত করেছি। তবে আমরা সবাই সজাগ থাকব যাতে কোনো দু/র্ঘটনা না ঘটে। ‘

প্রসঙ্গত, বিএনপি ক্ষমতায় থেকে যে সব অপকর্মকাণ্ড করে মানুষ হ/ত্যা করেছে সে সব বিষয় তদন্ত করা হবে মন্তব্য করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। তিনি বলেন, তাদের সময় যে সব লোক গু/ম বা খু/নের স্বীকার হয়েছে তাদের বিচারের দাবি উঠেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *