তোর দিদিভাই যে তোকে ছাড়া খুব অসহায়, তাড়াতাড়ি আমার কাছে চলে আয় বুনু, অপেক্ষায় রইলাম : ঐন্দ্রিলার বড় বোন

ছোট পর্দার আলোচিত অভিনেত্রী ঐন্দ্রিলা শর্মা অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে দীর্ঘ সময় ধরে মৃ/ত্যুর সঙ্গে লড়াই করে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সবাই ছেড়ে না ফেরার দেশে চলে যান ২০ নভেম্বর। আলোচিত অভিনেত্রী এর আগেও দুই বার ক্যানসারের সঙ্গে লড়াই করে ফিরে এসেছিলেন। কিন্তু এবারের যাত্রায় মৃ/ত্যু সঙ্গে লড়াই করতে করতে অবশেষে হার মেনে চলে গেলেন। তার এতো কম বয়সে চলা যাওয়া মেনে নিতে পারছে না কেউ। এবার ঐন্দ্রিলা হারিয়ে যা বললেন বড় বোন ঐশ্বর্য শর্মা।

টানা ২০ দিন মৃ/ত্যুর সঙ্গে লড়াই করে হেরে গেলেন কলকাতার ছোট পর্দার জনপ্রিয় অভিনেত্রী ঐন্দ্রিলা শর্মা। মাত্র ২৪ বছর বয়সে তার জীবন প্রদীপ নিভে যায়। এরই মধ্যে তিন দিন কেটে গেছে। প্রতি মুহূর্তে তার সব স্মৃতি যন্ত্রণা দিচ্ছে স্বজনদের। বোনকে হারানোর পর সোশ্যাল মিডিয়ায় এক আবেগঘন স্ট্যাটাস দিয়েছেন বড় বোন ঐশ্বরিয়া শর্মা।

ঐন্দ্রিলাকে তিনি লিখেছেন, “অনেক দিন হয়ে গেল, এখন তাড়াতাড়ি আয় বুনু (বোন)। তোমাকে ছাড়া আমি পঙ্গু (ঐন্দ্রিলা)। কে আমাকে সাজিয়ে দেবে? কে আমার ছবি তুলবে? আমার মুখ দেখে কে বুঝবে মনের কথা। কে পূরন করবে আলাদিনের আশ্চর্য প্রদীপের মতো আমার মনের সব চাওয়া?কার সাথে বেড়াতে যাবো?কার সাথে পার্টি করবো?কার সাথে সারারাত জেগে সিনেমা দেখবো,কথা বলবো?কে দিবে আমাকে সঠিক পরামর্শ? আমাদের এখনো অনেক পরিকল্পনা আছে?কে আমাকে নিঃস্বার্থভাবে ভালোবাসবে?কে আমার জন্য সারা পৃথিবীর সাথে যুদ্ধ করবে,আমাকে আগলে রাখবে?

ঐশ্বর্য আরও লেখেন, তুমি ছাড়া আমার কোনো বেস্ট ফ্রেন্ড নেই। তুমি আমার প্রাণশক্তি। এই ২৪ বছরে আমি নিজে কিছু করতে শিখিনি বুনু। আমি জানি তুই সাবলম্বী, কিন্তু তোর দিদিভাই যে তোকে ছাড়া খুব অসহায়। তাড়াতাড়ি আমার কাছে চলে আয় বুনু। অপেক্ষায় রইলাম।

প্রসঙ্গত, দীর্ঘদিন ক্যান্সারের সঙ্গে লড়াই করে অভিনয়ে ফিরেছেন ঐন্দ্রিলা শর্মা। কিন্তু বি/ধি বাকি । গত ১ নভেম্বর রাতে স্ট্রোক হলে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।চিকিৎসকদের শত চেষ্টার পরও শেষ রক্ষা হয়নি। ঐন্দ্রিলা ২০ নভেম্বর দুপুর ১টায় বিশ্ব ভ্রমণ শেষ করেন।

প্রসঙ্গত, ঐন্দ্রিলা হাড়িয়ে এক প্রকার অসহায়ত্ব প্রকাশ করেন বড় বোন ঐশ্বর্য শর্মা। আদরের ছোট বোনকে হারিয়ে পাগল প্রায় সে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *