পাঠান নিয়ে বিতর্ক, বিজেপি নেতাদের এবার ভিন্ন ইঙ্গিত দিলেন মোদি

দীর্ঘ দিনের বিরতির পর পাঠান সিনেমার মাধ্যমে ফের চলচ্চিত্রে ফিরেছেন বলিউড বাদশা খ্যা/ত অভিনেতা শাহরুখ খান। তবে পাঠানের গান ‘বেশরম রঙ’ এ অভিনেত্রী দীপিকা পাড়ুকোনের পোশাক নিয়ে বিতর্কে ঝড় উঠেছে। এতে ভারতের ক্ষমতাসীন দল বিজেপি নেতারা পাঠান সিনেমা নিয়ে ব্যাপক ক্ষেপেছেন এবং বয়কটের ইঙ্গিত দিয়েছেন। বিজেপি নেতাদের এমন কর্মকাণ্ডে নিয়ে যা বললেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

বলিউডের ছবি ‘পাঠান’ মুক্তির আগে বয়কটের ডাক দিয়েছেন বিজেপি নেতারা। শাহরুখ খানের এ সিনেমাতে প্রথম গান ‘বেশরম রঙ’ প্রকাশের পর থেকেই বিতর্ক শুরু হয়। এতে অভিনেত্রী দীপিকা পাড়ুকোনের একটি বিকিনি দৃশ্য নিয়ে আপত্তি জানানো হয়।

এই দৃশ্য অপসারণের দাবিতে বিক্ষোভ শুরু হয়। বিতর্কে রাজনীতিও রঙ নেয়। বেশ কয়েকজন বিজেপি নেতা দাবি করেছেন যে গেরুয়া রঙের বিকিনি পরার জন্য তাদের ক্ষমা চাওয়া চাইতে হবে। এই পরিস্থিতিতে মুখ খুললেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

সম্প্রতি বিজেপির জাতীয় কার্যনির্বাহী সভায়, প্রধানমন্ত্রী মোদি দলের নেতাদের সিনেমা সম্পর্কে “অহেতুক এবং অপ্রয়োজনীয় মন্তব্য” করা থেকে বিরত থাকার পরামর্শ দিয়েছেন।

১৬ ও ১৭ জানুয়ারি নয়াদিল্লিতে দুই দিনের জন্য বিজেপির কার্যনির্বাহী বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। আসন্ন লোকসভা নির্বাচনের প্রচারের রোডম্যাপ থেকে শুরু করে দলীয় কর্মীদের মনোবল দেওয়া হয় সভায়।

মঙ্গলবার বৈঠকের শেষ দিনে, প্রধানমন্ত্রী মোদি সিনেমা নিয়ে সাম্প্রতিক বিতর্ক এবং সেই বিতর্কে বিজেপি নেতাদের জড়িত থাকার বি/ষয়ে সতর্ক করেন। প্রধানমন্ত্রী বিজেপি নেতাদের সতর্ক করে বলেন, কিছু সিনেমা নিয়ে কেউ কেউ এমন মন্তব্য করেন, যা সারাদিন টিভিতে এবং সংবাদমাধ্যমে দেখানো হয়। এ ধরনের অপ্রয়োজনীয় মন্তব্য করা থেকে বিরত থাকুন।’

রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, সম্প্রতি ‘পাঠান’ চলচ্চিত্র ও এর গান ‘বেশরম রঙ’ নিয়ে যে বিতর্ক ও বয়কটের ধারা শুরু হয়েছে তাতে প্রধানমন্ত্রী চিন্তিত। গানটিতে দীপিকা পাড়ুকোনের ওচার বিকিনি পরা নিয়ে আপত্তি জানিয়েছেন বেশ কয়েকজন বিজেপি নেতা।

মহারাষ্ট্রের বিজেপি নেতা রাম কদম দাবি করেছেন যে সিনেমার নির্মাতারা ওচার বিকিনি পরে ‘সস্তা প্রচার’ করার চেষ্টা করেছিলেন। হিন্দুত্বের ভাবমূর্তি বা মনোভাবকে আঘাত করে এমন কোনো সিনেমা মহারাষ্ট্রে দেখানো হবে না বলেও হু/মকি দিয়েছেন তিনি।

অন্যদিকে, মধ্যপ্রদেশের মন্ত্রী নরোত্তম মিশ্রও দাবি করেছেন যে আপত্তিকর দৃশ্যটি সরানো না হলে পাঠান সিনেমাটিকে রাজ্যে মুক্তি দেওয়া হবে না।

প্রসঙ্গত, পাঠান সিনেমা নিয়ে বিজেপির নেতার বিতর্কে জড়ানোর বিষয়টি ভালো ভাবে নিতে পারেননি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তিনি নেতাদের সতর্ক করেছেন এসব বিষয় নিয়ে অপ্রয়োজনীয় মন্তব্য করতে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *