বিএনপি সরকারের সঙ্গে সংলাপ করবেন কিনা সাফ জানিয়ে দিলেন ফখরুল

জাতীয় নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নির্দলীয় সরকারসহ নানা ইস্যুতে সরকারের বিরুদ্ধে আন্দলোন করছে বিএনপি। যদিও সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে বিএনপির আন্দলোনকে সরকার ভয় পায় না কিন্তু বাস্তবে ভিন্ন চিত্র। বিএনপির আন্দলোনকে প্রতিহত করতে সরকার আইনশৃঙ্খলা বাহিনী দিয়ে বিএনপির নেতাকর্মীর ওপর হা/মলা, মালমা, নি/র্যাতন করছে। আন্দলোন মাধ্যমে সরকারের পতন ঘটিয়ে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের মাধ্যমে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করা হবে বলে বিএনপির পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে। নির্বাচন নিয়ে সরকারের সঙ্গে কোনো আলোচনা যাবে না বিএনপি বলে মন্তব্য করে যা বললেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

আওয়ামী লীগ ও শেখ হাসিনা সরকারের সঙ্গে বিএনপি কোনো সংলাপ করবে না বলে জানিয়েছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, আমরাও সংলাপের কথা বলিনি। আমরা শেখ হাসিনা ও তার সরকারের সঙ্গে সংলাপ করব না। কারণ তিনি ক/থা দিয়ে কথা রাখে না।

মঙ্গলবার (১৪ মার্চ) রাজধানীর গুলশানে দলটির চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির মহাসচিব এ কথা বলেন।

২০১৮ সালের নির্বাচনের আগে ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে বিএনপি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সংলাপে বসে। সে কথা উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল বলেন, ওই সংলাপে প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন, আর কোনো গ্রেপ্তার (বিএনপি কর্মীদের) হবে না, কোনো পুলিশি হয়রানি হবে না, গায়েবি মামলা হবে না। কিন্তু তিন দিন পর আমাদের প্রার্থীদের আটক করে নি/র্যাতন করা হয়।

‘কার সঙ্গে সং/লাপ’ প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের স/মালোচনা করে মির্জা ফখরুল বলেন, এত সাহস ও উন্নয়ন করে থা/কেন তবে এই মু/হূর্তে পদত্যাগ করেন । তত্ত্বাবধায়ক সরকারের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর করে নতুন নির্বাচন কমিশনের মাধ্যমে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ওই নির্বাচনে আমরা ক্ষমতায় আসলে মাথা পেতে নেব।

বিএনপির মহাসচিব বলেন, আমি বিএনপিকে ক্ষমতায় আ/সার জন্য বলছি না, দেশকে বাঁচানোর দায়িত্ব শুধু বিএনপির নয়, বিশেষ করে আওয়ামীলীগেরও দায়িত্ব রয়েছে। তারা কথায় কথায় বলে মু/ক্তিযুদ্ধে নেতৃত্ব দিয়ে দেশ স্বাধীন করেছে।

আগামী নির্বাচন অনিশ্চিত এবং পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ হবে উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল বলেন, ক্ষমতায় বসতে তারা গত দুই নির্বাচন সম্পূর্ণ একতরফাভাবে করেছে। সব ধরনের ভোট জালিয়াতি, সব ধরনের কারচুপি, সব ধরনের স/ন্ত্রাস, ভোটারদের কেন্দ্রে যেতে বাধা দিয়ে, ভোটারদের ফাঁকা রেখে তারা ফলাফল ঘোষণা করে এবং অবৈধভাবে ক্ষমতায় আসে। এখন আবারও নি/র্বাচন আসছে, এখন দেখছেন জনগণ তাদের সঙ্গে নেই। আসলে নির্বাচন হলে তারা ক্ষমতায় থাকতে পারবে না। ক্ষমতায় যাওয়া যাবে না। সেজন্য তারা যা করছে তা ইতিমধ্যে এমন পরিস্থিতি তৈরি করছে যে আমাদের দেশের নির্বাচনে কেউ হস্তক্ষেপ করবে না।

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ইসমাইল জবিউল্লাহ, সমাজকল্যাণ সম্পাদক কামরুজ্জামান রতন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, নির্বাচন নিয়ে সরকারের সঙ্গে কোনো সংলাপে যাবে না বিএনপি মন্তব্য করেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, যারা কথা দিয়ে কথা রাখেন না তাদের সঙ্গে কোনো সংলাপ নয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *