বিএনপি ১০ ডিসেম্বর কোনো অবস্থান ধর্মঘটের ডাক দিইনি : গয়েশ্বর

দীর্ঘ দিন ধরে ক্ষমতার বাইরে থাকায় সাংগঠনিক ভাবে দুর্বল হয়ে পড়েছে বিএনপি এমনটি ধারনা বিভিন্ন মহলের। কিন্তু সম্প্রতি সময়ে সরকারের বিরুদ্ধে বিভিন্ন ইস্যুতে বিএনপির আন্দোলন ভাবিয়ে তুলেছে সরকারকে। যার কারনে বিএনপির আন্দোলন প্রতিহত করা জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও দলের নেতাকর্মীদের দিয়ে সভা-সমাবেশে আক্রমন করছে সরকার এমনটি অভিযোগ করছে বিএনপির শীর্ষ নেতারা। বিএনপি সারা দেশে ধারবাহিক ভাবে সমাবেশ করছে তার অংশ হিসেবে ঢাকাও বিভাগীয় সমাবেশ করবে। ঢাকায় সমাবেশের কথা শুনে সরকারের কাঁপুনি হতে শুরু করেছে মন্তব্য করে যা বললেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়।

বিএনপির ঢাকা বিভাগীয় সমাবেশের ডাক শু/নে সরকারের কাঁপুনি শু/রু হয়ে গেছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়।

তিনি বলেন, ‘বিএনপি কোনো গোপন দল নয়। বিএনপি কী করে এবং কী করবে তা সবাইকে বলে ক/রে। আমরা ১০ ডিসেম্বর কোনো অবস্থান ধর্মঘট ডাকিনি।

আমরা শুধু সমাবেশের ডাক দিয়েছি, আর সরকারের কাঁপুনি হতে শুরু করেছে। ‘

বুধবার বেলা ১১টার দিকে বরিশালে বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশে গয়েশ্বর চন্দ্র রায় এ কথা বলেন। এতে সভাপতিত্ব করেন মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক মো. মনিরুজ্জামান খান ফারুক।

গয়েশ্বর আরও বলেন, যারা দিনে ভোট দেয় রাতে তাদের সঙ্গে বিএনপি খেলা করে না। বিএনপি খেলা করবে, দিনের ভোটের নির্বাচিতদের সঙ্গে।

তিনি আরও বলেন, বিএনপি ক্ষমতার জন্য লড়াই করছে না। বিএনপি লুটেরাদের হাত থেকে দেশ ও জনগণকে বাঁচাতে লড়াই করছে।

প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, আমাদের মৃত্যুকে ভয় দেখাবেন না। আমরা মুক্তিযুদ্ধ করিনি কিছু দু/র্নীতিবাজ কর্মকর্তা ও পুলিশ কর্মকর্তা দেশকে লু/টপাট করে দেশকে শেষ করে দেবেন, স্বৈরাচার সৃষ্টি করবে আমরা মু/ক্তিযুদ্ধ করিনি। ‘

সমাবেশে তিনি পুলিশ প্রশাসনকে সরকারের কথায় দেশের জনগণের বিরুদ্ধে না যাওয়ার পরামর্শ দেন।

কেন্দ্রীয় বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট বিলকিস জাহান শিরিন ও কেন্দ্রীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আকন কুদ্দুসুর রহমান, কেন্দ্রীয় বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক কাজী রওনকুল ইসলাম টিপু, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও সাবেক সংসদ সদস্য মেজবা উদ্দিন ফরহাদ, সাবেক সংসদ সদস্য ড. প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন। আর বরিশাল জেলা দক্ষিণ বিএনপির আহ্বায়ক আবুল হোসেন খান, কেন্দ্রীয় বিএনপির সদস্য ও বরিশাল বিএনপির সাবেক সভাপতি আলহাজ্ব এবায়েদুল হক চান, কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মুহাম্মদ রহমত উল্লাহ, কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য প্রকৌশলী আবদুস সোবহান, বরিশাল উত্তর জেলা বিএনপির আহ্বায়ক দেওয়ান মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ ও বরিশাল জেলা বিএনপির আহ্বায়ক মো. অন্যান্য।

প্রসঙ্গত, সরকার দেশে লুটপাট ও দুর্নীতির মাধ্যমে অর্থনৈতিক ব্যবস্থা শেষ করে দিচ্ছে যার দায় ভোগ করছে জনগণ মন্তব্য করেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়। তিনি আরও বলেন, ক্ষমতার জন্য দেশকে বাঁচানোর জন্য বিএনপি লড়াই করছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *