যেই বাংলাদেশ ব্যাংক নিজের রিজার্ভই নিরাপদে রাখতে পারেনা, এই কড়া চোখ থেকে লাভ কী যদি খেলাপি ঋণ ব্যাংক খাতকে খাইয়া ফেলে : পিনাকী

সম্প্রতি সরকারের লাগামহীন দু/র্নীতি ও লু/টপাটের কারনে দেশের অর্থনীতি হুমকির মুখে পড়েছে। কিন্তু বিষয়টি স্বীকার না করে ভিন্ন খাতে নিচ্ছে চেষ্টা করছে। অবৈধ্য ভাবে হাজার হাজার কোটি টাকা পাচার এবং উন্নয়নের নামে মেগা প্রকল্পের থেকে টাকা লু/পাটের কারনে দেশে রিজার্ভ সংকট তৈরী হয়েছে। যার দায় ভোগ করছে দেশের জনগন। অথচ এই বিষয় নিয়ে সরকারে কোনো মাথা ব্যাথা নেই তার ক্ষমতায় থাকার জন্য বিভ্রান্তিমূলক তথ্য দিচ্ছে। বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন পিনাকী ভট্টাচার্য হুবহু পাঠকদের নিচে দেওয়া হলো।

মাশরুর আরেফিন হাসিনার পক্ষে কলম ধরছে। সেইটা আবার প্রথম আলো ছাপছেও।

মাশরুর আরেফিন ব্যাংক বুঝেন, তারল্য বুঝেন কিন্তু মানুষের সোভারেন রাইট জিনিসটা বুঝেন না। মাশরুর আরেফিনকে বলতে হবে একটা মানুষ যদি আমানতের টাকা তুলে নিতে চায় সেইটা তার সোভারেন রাইট কিনা? মাশরুর আরেফিন বাংলাদেশ ব্যাংকের নিয়মিত কড়া চোখের সাফাই দিয়েছেন। যেই বাংলাদেশ ব্যাংক নিজের রিজার্ভই নিরাপদে রাখতে পারেনা। এই কড়া চোখ থেকে লাভ কী যদি খেলাপি ঋণ ব্যাংক খাতকে খাইয়া ফেলে। দুনিয়ার কোন দেশে এমন খেলাপি ঋণ আছে?

নাহ ম্যালা বড় হয়ে যাচ্ছে। কিন্তু মাশরুর আরেফিন আপনারে তো বুদ্ধিমান মনে করছিলাম। এই পড়ন্ত বেলায় হাসিনার ফরমায়েশি না খাটলে হইতো না? ব্যাংকারেরা চৌকস হয়, আপনি তো পলিটিক্যাল ট্রান্সফর্মেশিনের জাংচারে আইস্যা আউলায়ে গেলেন। আপনি হাসিনার পচা কাদায় আছাড় খাইলেন। জিন্দেগীতে এই দাগ আপনি মুছতে পারবেন গা থেকে? যতই মহৎ সাহিত্য রচনা করেন, একজন বর্বর নিকৃষ্ট মানবাধিকার লংঘনকারী ফ্যাসিস্ট রেজিমের পক্ষে কলম ধরছিলেন এইটা বাংলাদেশিরা মনে রাখবে।

প্রসঙ্গত, বিজার্ভ সংকট ও ব্যাংক ব্যবস্থার নিয়ন্ত্রনহীতার কারনে যে অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বাংলাদেশে তার জন্য দায়ী সরকার মন্তব্য করেন পিনাকী ভট্টাচার্য। তিনি বলেন, এমন পরিস্থিতির পরও সরকারের পক্ষ কথা বলার মানে সরকারের চাটুকারিতা ছাড়া আর কিছু নয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *